হেরে যাওয়া তারকা প্রার্থীরা যা বললেন

টালিউড তারকাদের একটা বড় অংশ এবার পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের প্রার্থী হয়েছেন। নির্বাচনে বিজেপি তারকা প্রার্থীদের চেয়ে তৃণমূলের তারকা প্রার্থীরা বেশি জয় পেয়েছেন।

এবার প্রার্থী হওয়া বেশিরভাগ তারকা ছিলেন রাজনীতির মাঠে নতুন। নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হয়েছেন বিজেপির তারকা প্রার্থী শ্রাবন্তী, পায়েল, যশ, পার্নো এবং তনুশ্রী।আর তৃণমূল থেকে সায়ন্তিকা, কৌশানী এবং সায়নী ব্যর্থ হয়েছেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ভোটে হেরে গিয়ে এই তারকারা কি রাজনীতি ছেড়ে দিয়ে ফের অ'ভিনয়ে মন দেবেন? নাকি আরও ভালো'ভাবে রাজনীতিতে প্রবেশ করবেন।

পশ্চিমবঙ্গের সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, ২০১৯ সালে বিজেপিতে নাম লেখান অ'ভিনেত্রী পার্নো মিত্র।তার রাজনৈতিক কার্যকলাপ আড়ালে থাকলেও বরাহনগর কেন্দ্রে হারের পরে তিনি বলেছেন, ‘রাজনীতি ছেড়ে যাওয়ার প্রশ্ন নেই। ২০১৯ সাল থেকে দলে রয়েছি। আগামী দিনে দল যে কাজ দেবে, তাই করব। এলাকার মানুষ যে কোনও বিপদে আমাকে পাশে পাবেন। ’

পরাজিত বিজেপি প্রার্থী তনুশ্রী চক্রবর্তী জানিয়েছেন, ‘লড়াই শেষ নয়, এবার শুরু হবে। মন খা'রাপ হয়েছে। কারণ আমি ও আমা'র কর্মীরা খুব খেটেছিলাম।হেরে গিয়ে অ'ভিনেত্রী পায়েল জানালেন, তিনি রাজনীতি ছেড়ে যাবেন না। তিনি বলেন, ‘এটা আমা'র শুরু, আমি এই জার্নি চালিয়ে নিয়ে যাব। ’ তবে আরেক তারকা শ্রাবন্তীর নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেননি। আগামী দিনে কী' করবেন, তা নিয়ে এখনো কিছুই বলেননি।

সায়ন্তিকা, কৌশানী ও যশ অবশ্য হারের পর চুপ রয়েছেন। তারা এখনো কোনো মন্তব্য করেননি। এদিকে সায়নী ঘোষ বিজেপি শি'বিরের হেনস্থার জবাবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করে ধরেছিলেন। আসানসোল দক্ষিণ কেন্দ্রে হারলেও এখনই তিনি রাজনীতির মাঠ ছাড়ছেন না বলে ধারণা করা যায় সহ'জেই।

সবার আগ্রহ এখন হেরে যাওয়া তারকা প্রার্থীদের দিকে। পরাজয় মেনে নিয়ে তারা এখন রাজনীতির মাঠ ছেড়ে দেবেন, নাকি দ্বিগুণ উৎসাহ নিয়ে কাজ করে যাবেন, তাই এখন দেখার বিষয়।

Back to top button

You cannot copy content of this page