কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট যে কারণে বন্ধ করে দেওয়া হলো

বলিউড অ'ভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করেছে টুইটার। পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার দিন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যাকে নিয়ে একের পর এক কটূক্তি করে আসছিলেন বলিউডের বিতর্কিত অ'ভিনেত্রী কঙ্গনা রনৌত।

তার পরিপ্রেক্ষিতে টুইটারের নিয়মবিধি লঙ্ঘনের অ'ভিযোগে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এই তারকার অ্যাকাউন্ট। পরপর তিনটি টুইটে মমতাকে আক্রমণ করেন কঙ্গনা। প্রথম টুইটে কঙ্গনা লেখেন, বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গারা মমতা ব্যানার্জির সবচেয়ে বড় শক্তি। যা প্রবণতা দেখছি তাতে বাংলায় আর হিন্দুরা সংখ্যাগরিষ্ঠ নেই এবং তথ্য অনুযায়ী গোটা ভা'রতের অন্য এলাকার তুলনায় বাংলার মু'সলিম'রা সবচেয়ে গরিব আর বঞ্চিত।

ভালো আরেকটা কা'শ্মীর তৈরি হচ্ছে।অ'ভিনেত্রীর এ মন্তব্য মেনে নিতে পারেনি নেটিজেনরা। তার বি'রুদ্ধে পাল্টা সরব হন অনেকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (৪ মে) সা'সপেন্ড করা হয়েছে কঙ্গনা রানাওয়াতের টুইটার অ্যাকাউন্ট।

কারণ হিসেবে টুইটার কর্তৃপক্ষ উল্লেখ করেছে, টুইটার ব্যবহারের নীতিমালা মানছেন না কঙ্গনা। তাই তার অ্যাকাউন্ডটি সা'সপেন্ড করা হয়েছে। কঙ্গনার অ্যাকাউন্ট সা'সপেন্ড করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন কঙ্গনা বিরোধী অনেকে।উস্কানিমূলক মন্তব্য এবং বাঙালি জাতিকে অ'পমান করার অ'ভিযোগে কঙ্গনার নামে কলকাতায় মা'মলা করেছেন হাই'কোর্টের আইনজীবী সুমিত চৌধুরী।

ই-মেইলে কঙ্গনার নামে মা'মলা দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছে হিন্দুস্তান টাইমস। সুমিত চৌধুরীর অ'ভিযোগ করেন, কঙ্গনা বাংলার আইনশৃঙ্খলা নষ্ট করতে চাইছেন। ২ মে তিনি যে তিনটি টুইট করেছেন তা পশ্চিমবঙ্গ ও পশ্চিমবঙ্গবাসীর অ'পমান। বিজেপির পক্ষ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে অশান্তি ছড়াতে চাইছেন কঙ্গনা।

Back to top button

You cannot copy content of this page