নারীরা ৩০ বছরের পর যেভাবে শ’রীর ঠিক রাখবেন

শরীর ঠিক রাখবেন যেভাবে- নারী এবং পুরুষের শরীরের গঠনে বেশকিছু পার্থক্য রয়েছে। পুরুষদের তুলনায় মেয়েদের শরীর অনেক বেশি জটিল।সে কারণেই মেয়েদের বেশি করে নিজেদের খেয়াল রাখা উচিত।

এখনকার নারীকে ঘরে-বাইরে সবদিক সামলাতে হয়। বয়স ত্রিশ পার হলে নারীকে নিতে হবে বিশেষ যত্ন। এই নিয়মগুলো মেনে চললে সুস্থতাই হবে সঙ্গী-ত্রিশের পর থেকে নারী হাড়ের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটতে শুরু করে। তাই এই সময় বেশি করে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া শুরু করতে হবে। সেইসঙ্গে সকাল ৭-৮ পর্যন্ত গায়ে রোদ লাগাতে হবে।

এতে শরীরে ভিটামিন ডি-এর ঘাটতি দূর হবে। ফলে হাড় ভালো থাকবে। ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো দুধ, দই, পনির, ব্রকলি, বাদাম প্রভৃতি।যেসব রোগের ভ্যাকসিন বাজারে পাওয়া য়ায়, সেগুলো আপনি নিতে পারেন কি না সে বিষয়ে চিকিৎসকের সঙ্গে পরাম'র্শ করে নিন। বেশিরভাগ মেয়েরাই ক্যালসিয়াম ডেভিসিয়েন্সি এবং অ্যানিমিয়ায় ভোগেন। এই দুটি ক্ষেত্রে কী' কী' ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে বিষয়ে জেনে নেওয়াটা জরুরি।

ত্রিশের পর থেকে নারীর শরীরে এমনকিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যে তার প্রভাবে হরমোনাল ফাংশন ঠিকমতো হয় না। ফলে নানাবিধ রোগ মা'থা চাড়া দিয়ে ওঠে।এই কারণে নিয়মিত অশ্বগন্ধা এবং তুলসির মতো প্রকৃতিক উপাদান খাওয়া শুরু করতে হবে। কারণ এমনটা করলে হরমোনের ক্ষরণ ঠিক মতো হতে শুরু করবে।

প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে। প্রয়োজনে চিকিৎসকের সঙ্গে পরাম'র্শ করে একটা ডায়েট চার্ট বানিয়ে নিন। সেই সঙ্গে প্রতিদিন শরীরচর্চা করুন। যাদের বয়স একটু বেশি তারা নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর চিকিৎসকের পরম'র্শ নিন।ত্রিশের পর থেকে নারীর শারীরিক ক্ষমতা কমতে শুরু করে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই শরীর এত মাত্রায় ক্লান্ত হয়ে পরে যে কোনো কাজ করতেই মন চায় না।

এমনটা যাতে আপনার সঙ্গে না ঘটে তা যদি সুনিশ্চিত করতে রোজের ডায়েটে মাংস, ডিম, নানাবিধ বীজ, বাদাম এবং ব্রাউন রাইসের মতো আয়রন সমৃদ্ধ খাবার রাখতে হবে।যেসব রোগ শুধু মাত্র মেয়েদেরই হয়, যেমন- পলিসিসটিক ওভা'রিয়ান সিনড্রোম, ব্রেস্ট ক্যান্সার, ওভা'রিয়ান ক্যান্সার প্রভৃতি রোগের বিষয়ে একটু জেনে নিন।বিশেষত লক্ষণগুলো স'ম্পর্কে।

এমনটা করলে দেখবেন অনেক রোগকেই আপনি প্রথম স্টেজে আ'ট'কে দিতে পারবেন।স্ট্রেস হলো এমন একটি বিষ, যা একটু একটু করে শেষ করে দেয় মানব জীবন। বিশেষত মেয়েদের শরীরের উপরে তো স্ট্রেসের খুব বাজে প্রভাব পরে।তাই আজ থেকেই স্ট্রেসকে বিদায় দিন। বিশেষ করে যারা মা হওয়ার কথা ভাবছেন, তারা স্ট্রেস থেকে নিজেদের দূরে রাখু'ন। কারণ মানসিক চাপ শুধু আপনার উপর নয়, আপনার সন্তানের উপরও কিন্তু কুপ্রভব ফেলবে।

Back to top button

You cannot copy content of this page