তালাক না নিয়ে অন্যের বউ বিয়ে যা বললেন মা'ওলানা রব্বানী

বাংলাদেশের একজন ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও কেবিন ক্রু তামিমা সুলতানা তাম্মির বিয়ে নিয়ে তুমুল বিতর্ক ছড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তামিমা'র আগের স্বামী রায়হানের অ'ভিযোগ তাকে তালাক না দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা।

কয়েক দিন ধরে গণমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়াতে বিষয়টি নিয়ে খুব আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। এখন আবার শোনা যাচ্ছে নাসিরকে বিয়ের আগে ছয় মাস অন্য কারো সঙ্গে সংসার করেছেন এ কেবিন ক্রু। বেহাপনার চরম দৃষ্টান্ত স্থাপন করায় তাকে নিয়ে কথা বলছেন অনেকেই।

কয়েকজন আইনজীবী নাসির ও তামিমা'র বিতর্কিত বিয়ে নিয়ে তাদের আইনি মতামত দিয়েছেন। এদিকে নাসিরের বিয়ের বিষয়টি ওয়াজ-মাহফিলের আলোচনায়ও স্থান পেয়েছে। অন্যের বউ বিয়ে নিয়ে অনেকেই মা'ওলানা গো'লাম রব্বানী যু'ক্তিবাদীর কাছে তার মতামত জানতে চেয়েছেন।

এ নিয়ে ঝিনাইদহে একটি ওয়াজে পবিত্র কোরআনের আলোকে বক্তব্য দিয়েছেন তিনি। ইতোমধ্যে ইউটিউব ও ফেসবুকে সেই ভিডিওটি ভাই'রাল হয়েছে। নাসির-তামিমা'র বিয়ে প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, নারীদের দোষ আগে দেবেন নাকি পুরুষের দোষ আগে দেবেন? সমাজের অবস্থা এমন হয়ে গেছে বউ তুমি কার? বউ একজনের আছে এরপরও আরেকজনের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন।এগুলো নারী নাকি বেহায়া ডাইনি। পবিত্র কোরআনের সূরা নুরে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, দুশ্চরিত্রবান নারীর জন্য দুশ্চরিত্র পুরুষ, দুশ্চরিত্রবান পুরুষের জন্য দুশ্চরিত্র নারী।

তিনি বলেন, আমা'র কাছে ২০টি এসএমএস ও ১০০টি কল আসছে, সবাই জানতে চেয়েছেন- হুজুর পালিয়ে অন্যের বউ বিয়ে করা জায়েজ নাকি হারাম। অন্যের বউকে ভাগিয়ে নিয়ে বিয়ে করা জায়েজ নাই।এ ধরনের কাজ যারা করে তাদের বিয়ে হবে না, তাদের বিয়ে বাতিল। অন্য আলেম ওলামাদের কাছ থেকে ফতোয়া নেবেন। অন্যের বউকে ভাগিয়ে নিয়ে বিয়ে করলে এ বিয়ে হবে না।

শুধু তাই নয়, তিনি একজন মু'সলমান ভাইয়ের হক নষ্ট করেছেন। এজন্য তার ডবল গুণাহ হবে। এদিকে ভ্যালেন্টাইনস ডেতে কেবিন ক্রু তামিমা তাম্মিকে বিয়ে করেন নাসির।তাদের জমকালো বিয়ের অনুষ্ঠানে ছবি উষ্ণতা ছড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা দুজনকে নিয়ে মেতে ছিলেন কয়েক দিন। কিন্তু এক সপ্তাহ পূর্ণ না হতেই জানা গেল নাসিরপত্নীর আগে আরেকটি বিয়ে হয়েছিল। তামিমা'র সাবেক স্বামী রাকিব হাসান। তার দাবি, তামিমা তাকে ডিভোর্স না দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছেন।

Back to top button

You cannot copy content of this page