কোভ্যাক্সিন টিকা অনুমোদন, সমালোচনার ঝড় ভা'রতে

ভা'রতে দেশীয় প্রযু'ক্তিতে তৈরি করো'নার প্রতিষেধক টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’-এর ট্রায়াল চলা অবস্থায় কেন জরুরিভিত্তিতে অনুমোদন দেয়া হল, এ নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে ভা'রতে। বিশেষ করে সে দেশের স্বাস্থ্য সংস্থাগুলোই বিস্মিত প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে। গতকাল রোববার (৩ জানুয়ারি) কোভ্যাক্সিন টিকার অনুমোদন মিললেও, তার তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল এখনো শেষ হয়নি। ভ্যাকসিনের মতো স্প'র্শকাতর বিষয়ে সরকারের এই তড়িঘড়ি অনুমোদনকে অনেকটা উদাসীন আর দায়িত্বহীন আচরণ বলছে বিশেষজ্ঞ ও বিরোধীদল।

সম্প্রতি ভা'রতে জরুরি ব্যবহারের জন্য দুটি ভ্যাকসিনের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে ড্রা'গস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া। এর একটি অক্সফোর্ড ইউনিভা'র্সিটি ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি কোভিশিল্ড, অ'পরটি ভা'রত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন। অক্সফোর্ডের অনুমতি সাপেক্ষে কোভিশিল্ড উৎপাদন করছে ভা'রতের সিরাম ইনস্টিটিউট।

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও ধরনের কথা না হলেও কোভ্যাক্সিনের অনুমোদন নিয়ে তুমুল বিতর্ক চলছে। কারণ এই ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এখনও শেষ হয়নি, নেই সুরক্ষা সংক্রান্ত পর্যাপ্ত তথ্যও। কোভ্যাক্সিন নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠতে শুরু করার পর পরই এই ভ্যাকসিন নিয়ে দেশের মানুষকে আশ্বা'স দিয়েছেন দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিক্যাল সাইন্সেসের (এইমস) পরিচালক ডা. রণদীপ গুলেরিয়া।

এক সংবাদমাধ্যমে ডা. রণদীপ গুলেরিয়া বলেন, কেউ কোভ্যাক্সিন নেওয়ার পর কোনও ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে এজন্য ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। সম্প্রতি ব্রিটেনে নতুন ধরনের করো'নার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। ভা'রতসহ বেশ কিছু দেশেও নতুন ধরনের এই ভাই'রাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে।

নতুন ধরনের এই করোনার সংক্রমণ বেড়ে গেলে কোভ্যাক্সিনের ব্যবহার ব্যবহার শুরু করবে ভা'রত। তবে তা তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের পরই। ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সময়ও কারও এই ভ্যাকসিন গ্রহণের পর কোনও ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় দেখা দিলে এর ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সাধারণ মানুষকে এই ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হওয়ার পরও একই ধরনের ব্যবস্থা থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

কোভ্যাক্সিন নিয়ে তৈরি হওয়া বিতর্ক নিয়েও মুখ খুলেছেন রণদীপ গুলেরিয়া। ডা. রণদীপ গুলেরিয়া বলেন, ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও ধরনের রাজনীতি কাম্য নয়। বিজ্ঞানীরা রাজনীতি জানেন না। তারা অক্লান্তভাবে ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ করে চলেছেন। নতুন ধরনের করোনার বি'রুদ্ধে ভ্যাকসিনের কাজ করার সম্ভাবনা খুবই বেশি।

ট্রায়াল শেষ হওয়ার আগেই ভ্যাকসিনটির অনুমোদনের পক্ষে সাফাই গেয়ে এ কর্মক'র্তা বলেন, সুরক্ষা নিয়ে ন্যূনতম দুশ্চিন্তা থাকলে আম'রা কোনও কিছুর অনুমোদন দিতাম না। ভ্যাকসিনগুলো ১১০ শতাংশ নিরাপদ। তবে এই কথায় সন্তুষ্ট হতে পারেননি অনেকেই। সমালোচকদের মতে, কোভ্যাক্সিনকে আগেভাগেই অনুমোদন দিয়ে বড় ভুল করেছে ভা'রত সরকার। সূত্র: জি নিউজ।

Back to top button

You cannot copy content of this page