চায়ের দোকানে বসে এক নেতা আরেক নেতার বি'রুদ্ধে কথা বলবেন না: কাদের

সংগঠনের জন্য সাংগঠনিক ঐক্যের বিকল্প নেই। সংগঠনকে মজবুত জনবহুল তরীতে পরিণত করতে হলে আপনাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ছোট ছোট বিষয়ে মতের অমিল থাকলে তা নিজেরা বসে মিটিয়ে ফেলুন। চা দোকানে বসে দলের একজন নেতা আরেকজন নেতার বি'রুদ্ধে কথা বলবেন, সেটা আমাদের জন্য সম্মানের নয়। সেটা আওয়ামী লীগের ম'র্যাদাকেই ক্ষুণ্ন করে। ঘরের বিবাদ ঘরে বসেই মিটিয়ে ফেলুন।’

শনিবার (১৪ নভেম্বর) রাজশাহী জে'লার বাগমা'রা উপজে'লা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যু'ক্ত হয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের এই নির্দেশনা দেন ওবায়দুল কাদের।

দলের ত্যাগী নিবেদিত কর্মীদের মূল্যায়ন করার নির্দেশনা দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘একটি রাজনৈতিক দলের প্রা'ণ হচ্ছে নিবেদিত কর্মী বাহিনী। সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের নির্দেশনা দিয়েছেন আমাদের নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা। দলীয় নেতাকর্মীদের বলবো, নিজের অবস্থান ভা'রি করার জন্য ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে নিজের লোক দিয়ে কমিটি করা যাবে না। করা যাবে না কোনও পকেট কমিটি। দলকে শক্তিশালী করতে হলে নিবেদিত প্রা'ণ কর্মীদের দিয়ে সংগঠন করতে হবে। চিহ্নিত অ'প'রাধী, চিহ্নিত চাঁদাবাজ, চিহ্নিত দখলদার, চিহ্নিত মা'দকসেবী, চিহ্নিত মা'দক ব্যবসায়ী, চিহ্নিত সাম্প্রদায়িক অ'পশক্তি, নারী নি'র্যা'তনকারী, বিতর্কিত ব্যক্তিদের দলে আনা যাবে না। শুধু তাই না। ধ'র্ষ'ক, ধ'' র্ষ' ণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এদের শুধু রাজনৈতিক প্রশ্রয়ই-আশ্রয়ই বন্ধ নয়, এসব ঘৃণ্য অ'প'রাধীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ করে দিতে হবে।’

Back to top button

You cannot copy content of this page