বরিস সরকারে ভাঙনের সুর

পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের প্রধান উপদেষ্টা ডোমিনিক কামিংস। যু'ক্তরাজ্য যখন করো'না মহামা'রি আর ব্রেক্সিটের মতো ইস্যু নিয়ে তটস্থ তখনই আকস্মিক এমন সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।

শুক্রবার ১৩ নভেম্বর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় লন্ডনের ‘দশ ডাউনিং স্ট্রিট’ থেকে তাকে একটি বাক্স হাতে নিয়ে বের হতে দেখা যায়। তার এই ছবি ইতিমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। কামিংসন প্রধানমন্ত্রী বরিসের ব্রেক্সিট প্রচারণার প্রধান নেপথ্য।

করো'নাভাই'রাসের সংক্রমণ আর ব্রেক্সিট চূড়ান্ত নিয়ে বেশ চাপের মুখে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। একদিকে যু'ক্তরাজ্যের অর্থনৈতিক সংকট যখন গভীর হতে শুরু করেছে সেই মুহূর্তে তার সঙ্গ ছাড়ছেন ঘনিষ্ঠ জনেরা। ডোমিনিক কামিংসের আগে পদত্যাগ করেন বরিস জনসনের যোগাযোগ পরিচালক লি কেইন

গেল (১১ নভেম্বর) বুধবার কেইনের পদত্যাগের খবরে ছড়িয়ে পড়ার পর কামিংসও পদত্যাগের হু'মকি দেন, এমন গুজব রটে। যদিও তখনই তা অস্বীকার করেন কামিংস। যে ব্রেক্সিট প্রচার চালিয়ে বরিস জনসন ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন সেই প্রচারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তি ছিলেন লি কেইন ও ডোমিনিক কামিংস।

দ্য গার্ডিয়ান অ্যান্ড ফিনান্সিয়াল টাইমস পত্রিকা বলছে, জনসনের নির্দেশই তিনি পদত্যাগ করছেন। ব্রেক্সিট ইস্যু এখনো সমাধান না হওয়ায় গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্বরতদের এভাবে পদত্যাগে উভ'য় সঙ্কটে পড়তে পারে জনসন সরকার।

চলতি বছরের শেষে তথা ডিসেম্বরেই সরকার থেকে সরে দাঁড়াবেন তিনি। কয়েকদিনের গুঞ্জনের মধ্যে বৃহস্পতিবার রাতেই বিবিসির এক সাক্ষাৎকারে কামিংস জানান, ক্রিসমাসের মধ্যে সরে দাঁড়ানোর পরিকল্পনা তার। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, বরিসের সরকারের চিফ অব স্টাফ পদে পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ নাকচ করায় পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন কামিংস।

Back to top button

You cannot copy content of this page