কোরবানির মাংস কাটতে গিয়ে আ'হত শতাধিক

ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীজুড়ে পাড়া-মহল্লায় পেশাদার কসাইদের চেয়ে মৌসুমি কসাইদের উপস্থিতিই বেশি। বাড়তি চাহিদার কারণে অনেকেই একদিনের কসাই বনে যান।

এদিকে প্রয়োজনে কিংবা শখের বসেও অনেকে মাংস কা'টাকাটিতে হাত লাগান।
অনেক সময় সামান্য অসাবধানতা বা অজ্ঞতার ফলে কোরবানির ঈদ আনন্দও মাটি হয়ে যেতে পারে। মাংস কা'টাকাটি করতে গিয়ে হাত-পা কে'টে দ্বারস্থ হতে হচ্ছে চিকিৎসকের।

শনিবার (১ আগস্ট) ঈদের দিন শুধুমাত্র ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতা'লেই এমন শতাধিক ব্যক্তি চিকিৎসা নিয়েছেন।

ঢামেক হাসপাতা'লে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সারা দিনে মাংস কাটতে গিয়ে আ'হত হয়ে শতাধিক ব্যক্তি জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন। যাদের বেশিরভাগই হাতে ও পায়ে ধারালো ছু'রি বা দায়ের আ'ঘাত। অনেকের শরীরের বিভিন্নস্থানেও জ'খমপ্রাপ্ত হয়েছেন। এছাড়া গরুর সিংয়ের আ'ঘাত কিংবা লাথির আ'ঘাতেও আ'হত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন কয়েকজন।

হাত-পা কে'টে ফেলা কয়েকজনের পাঁচটি থেকে ১০টি পর্যন্ত সেলাই লেগেছে। তবে কারও ভর্তির প্রয়োজন হয়নি। সবাইকেই প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

রাজধানীর অনেক এলাকা থেকেই লোকজন মাংস কা'টাকাটি করতে গিয়ে আ'ঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ঢামেক হাসপাতা'লে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে বেশিরভাগ রোগী ছিল যাত্রাবাড়ী, হাজারীবাগ, ধানমন্ডি এলাকার।

ঢামেক হাসপাতা'লের জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. আলাউদ্দিন বাংলানিউজকে বলেন, সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শতাধিক জনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। যারা কোরবানির মাংস কাটতে গিয়ে শরীরের বিভিন্নস্থানে আ'ঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন। তবে সবাইকেই প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Back to top button

You cannot copy content of this page