জুমা'র নামাজের ফজিলত ও আমল

মু'সলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক উৎসবের দিন শুক্রবার। এই দিনকে ‘ইয়াওমুল জুমা’ বলা হয়। আল্লাহ তায়ালা নভোমণ্ডল, ভূমণ্ডল ও গোটা জগৎকে ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। এই ছয় দিনের শেষ দিন ছিল জুমা'র দিন। এই দিনেই হ'জরত আদম (আ.) সৃজিত হন। এ দিনেই তাকে জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং এ দিনেই জান্নাত থেকে পৃথিবীতে নামানো হয়। কেয়ামত এ দিনেই সংঘটিত হবে।

আল্লাহ তায়ালা প্রতি সপ্তাহে মানবজাতির সমাবেশ ও ঈদের জন্য এ দিন নির্ধারণ করেছিলেন। কিন্তু পূর্ববর্তী উম্মতরা তা পালন করতে ব্যর্থ হয়। ইস'লামের জুমা'র গুরুত্ব অ'পরিসীম। স্বয়ং আল্লাহপাক কোরান পাকে ইরশাদ করেন ‘হে মুমিনগণ জুমা'র দিনে যখন নামাজের আজান দেয়া হয়, তখন তোম'রা আল্লাহর স্ম'রণের উদ্দেশেও দ্রুত ধাবিত হও এবং ক্রয়-বিক্রয় ত্যাগ কর’। সূরা জুমা, আয়াত নং-৯।

তাই জুমা'র আজানের আগেই সব কর্মব্যস্ততা ত্যাগ করে জুমা'র নামাজের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে ম'সজিদে গমন করা সব মু'সলমানের ই'মানি দায়িত্ব। এ দিনে এমন একটি সময় রয়েছে, তখন মানুষ যে দোয়াই করে তা-ই কবুল হয়। এই দিনের বিশেষ কিছু আমল রয়েছে, যা হাদিস দ্বারা প্রমাণিত।

এর মধ্যে কয়েকটি আমল উল্লেখ করা হলো: হ'জরত আউস ইবনে আউস রা. বলেন, ‘রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন যে ব্যক্তি জুমা'র দিনে ভালো'ভাবে গোসল করবে, সকাল সকাল প্রস্তুত হয়ে হেঁটে ম'সজিদে গমন করে ই'মাম সাহেবের কাছে বসবে এবং মনোযোগী হয়ে তার খুতবা শ্রবণ করবে ও অনর্থক কর্ম থেকে বিরত থাকবে, তার প্রত্যেক কদমে এক বছরের নফল রোজা এবং এক বছরের নফল নামাজের সওয়াব আল্লাহপাক তাকে দান করবেন।’ (নাসাঈ শরিফ ১৫৫)

হ'জরত আবু হুরায়রা রাযি বলেন, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন ‘যে উত্তম'রূপে অজু করবে, অ'তঃপর জুমা'র ম'সজিদে গমন করবে এবং মনোযোগ সহকারে খুতবা শ্রবণ করবে তার এ জুমা থেকে পূর্ববর্তী জুমাসহ আরো তিন দিনের গুনাহগুলো কমা করা হবে। আর যে ব্যক্তি খুতবা শ্রবণে মনোযোগী না হয়ে খুতবা চলাকালীন কঙ্কর-বালি নাড়ল, সে অনর্থক কাজ করল।’ (মু'সলিম শরিফ ১/২৮৩)

হ'জরত আবু সাঈদ খুদরি রাযি থেকে বর্ণিত আছে যে, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি জুমা'র দিনে সূরা কাহ্ফ তেলাওয়াত করবে তার (ই'মানের) নূর-এ জুমা থেকে পরবর্তী জুমা পর্যন্ত চ'মকাতে থাকবে।’ (মেশকাত শরিফ-১৮৯) হ'জরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রাযি থেকে বর্ণিত রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন ‘জুমা'র দিনে এমন একটি মুহূর্ত রয়েছে, কোনো মু'সলমান ওই মুহূর্ত আল্লাহর কাছে যা কিছু প্রার্থনা করবে অবশ্যই আল্লাহপাক তাকে তা দান করবেন। সুতরাং তোম'রা ওই মূল্যবান মুহূর্তকে আসরের পর থেকে দিনের শেষ পর্যন্ত তালা'শ কর।’ (আবু দাউদ ১/১৫০)।

উপরের এই হাদিসগুলোর দ্বারা প্রমাণিত হয়, জুমা'র দিনে সব মু'সলমানের জন্য কর্তব্য হচ্ছে সব ব্যস্ততা ত্যাগ করে আজানের আগেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে ম'সজিদে গমন করা, খুতবা মনোযোগ সহকালে শ্রবণ করা, খুতবা চলাকালীন কথার্বাতা বলা থেকে বিরত থাকা।

Back to top button

You cannot copy content of this page