বাসা ছাড়তে এসে সপরিবারেই পৃথিবী ছাড়লেন জ’জ’কোর্টের মুহুরি আ. রহমান

আব্দুর রহমান পেশায় ঢাকা জ’জ’কোর্টের মুহুরি। পুরান ঢাকার কসা’ইটুলি এলা’কায় তিনি স্ত্রী'-সন্তান নিয়ে এক রু’মের বা’সায় ভাড়া থাকতেন। আব্দুর রহ’মান ও তার স্ত্রী' হাসিনা বেগম দম্পতির একমা’ত্র সন্তা’ন শি’ফাত (৯), একটি মাদ্রাসায় পড়া’লেখা করতো। বেশ ভালোই কে'টে যাচ্ছি’লো তাদের দিন।

বৈশ্বিক ম’হামা’রি করো’নার কার’ণে সংসা’র চা’লাতে হি’মশিম খা’চ্ছিলেন আব্দুর রহমান। বুদ্ধি করে ছেড়ে দেন পুরান ঢাকার ভাড়া নেওয়া বা’সাটি। কিন্তু বাড়ি’ওয়া’লার দাবি জুন মাসে’র পর ছা’ড়তে হবে বাসা। তাই ঘরে’র আস’বাব’পত্র রেখেই সপ’রিবারে গ্রামের বাড়ি মু’ন্সিগ’ঞ্জের মির’কাদিম চলে যান তিনি।

সোমবার (২৯ জুন) সকা’লে বাসা ছেড়ে দিয়ে মা’লা’মাল নিয়ে যেতে মুন্সি’গঞ্জ থেকে ম'র্নিং বার্ড লঞ্চে করে ঢাকায় আসছিলেন আব্দুর রহমান। তবে তাদের লঞ্চ’টি টার্মি’নালে নোঙর করার আগেই চাঁদ’পুর থেকে আসা ময়ূ’রী-২ লঞ্চের ধাক্কা’য় ডু’বে যায় ম'র্নিং বার্ড লঞ্চ। পরে ফা’য়ার সার্ভিসে’র ডু’বুরি দল তাদের ম’র’দে’হ উ’দ্ধার করে।

স্যার সলি’মুল্লাহ মেডি’ক্যা’ল কলেজ হাসাপতাল ম’র্গে ম’রদে’হ শ’নাক্ত ক’রতে এসে নি’হ’ত হা’সিনা বেগ’মের বোন হামিদা বেগম এসব ত’থ্য জানান।

তিনি আরও ব’লেন, আ’জকে’ই তা’দের বাসা ছে’ড়ে ‘মা’লামা’ল নিয়ে চ’লে যাও’য়ার কথা ছিল। তা’দের ছে'লে’টি’কে বা’ড়িতে রেখে আ’সার ক’থা ছিল। কিন্তু সে বা’ড়িতে থাক’তে চা’য়নি বলে’ই বাধ্য হয়ে তা’কেও নিয়ে আস’তে হয়ে’ছি’ল। একটি দু’র্ঘটনা’য় ঝ’ড়ে গেলো পুরো এক’টি পরি’বার।

Back to top button

You cannot copy content of this page